হোয়াট ইজ ফ্রিডম?

২৩৩ পঠিত ... ১৭:০০, মে ১০, ২০২২

What-is-freedom

এই লেখা দেখিয়া অনেকেই হয়তো বা মনে করিবে আমি বৃষ্টি উপলক্ষ্যে বেশ চোখের পাটি খুলিয়া, মোটিভেশনাল স্পিকারদের কথা শুনিয়া ('তুমি তোমার দুঃখ সম্পর্কে লিখো, গাল বাড়াইয়া দিয়া আরেকদফা চড় খাও') লিখিতে বসিয়াছি অনেকদিন বাদে৷ হইতেই পারে, ঈশ্বর মাঝেসাঝে ভক্তদের খুশি করিয়া থাকে তাহাদের হাতে হাত মিলাইয়া, আমিও না হয় তাই করিলাম।  

সেইদিন বেশ কিছু ভক্তদের পর্যবেক্ষণ করিতেছিলাম। তাহাদের আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল হোয়াট ইজ ফ্রিডম? উল্লেখ্য, দু'পাতা অমর্ত্য পড়িয়া ইহারা নিজেদের কঠিন বিজ্ঞ ভাবা শুরু করিয়াছে। ব্যাপার নহে। তোমাদিগকে শুনাইবো বলিয়া বেশ চুপেচাপে তাহাদের কথা শুনিতেছিলাম।

এক ষাড় কহিল, 'মৃত্যুতেই ফ্রিডম লুক্কায়িত।' হাসিলাম, টুকিয়া রাখিলাম৷ আরেকজনে কহিল, 'অর্থতে', আরেক মর্কট কহিল, উহার পৃথিবী ভ্রমণে বের হইতে পারিলেই তবে প্রকৃত ফ্রিডম অনুভূত হইবে।

কথিত আছে, 'মানুষের মতো নাটক দুনিয়াতে অন্য কোন জীব করিতে পারি না। এমন রঙের নাটক অন্য জায়গায় দেখা দায়!' আমি তাই বিনা টিকিটে বহু চুটকি নাটিকা দেখিতে থাকিলাম। এসাইনমেন্টের মতো টুকিয়া রাখিলাম বিশেষ অংশ আর হাসিতে লাগিলাম। (অবশ্যই মনে মনে, না হইলে ভক্তরা আমার নজর কাড়িয়াছি তাহা বুঝিয়া ফেলিয়া বিগড়াইয়া যাইতে পারে। বানরকে কিছুতেই মাথায় চড়িতে দেয়া যাইবে না!)

সেদিন খুব করিয়া ভাবিলাম। ভাবিতে ভাবিতে মুড়ির কৌটা দিয়া আসার সময় আমার উত্তর আমার চোখের সামনে পড়িলো। আমি টুক করিয়া কৌটা হতে নামিয়া উত্তরের পিছু পিছু যাইতে লাগিলাম।

উত্তর হাটিয়া ঘুরিয়া এর ওর সহিত হাসিয়া যায়। উত্তরের সব এলোমেলো। তাহার কোনো ছিরিই নেই। দেখিতে দেখিতে হঠাৎ উত্তরের গা ঘেঁষিয়া এক মানুষের বাচ্চা চলিয়া গেল, উত্তরের বিন্দুমাত্র ভ্রুক্ষেপ নেই তাতে। সে আপনমনেই হাঁটিতে লাগিলো। আমি ঠিক করিলাম উত্তরের সহিত কথা কইবো। আজ একটা ব্যবস্থা করা আবশ্যক। আমি উত্তরকে ডাক দিলাম, ‘এই যে! শুনছেন?’

: শুনুম না কেরে আমার গুষ্ঠি উদ্ধার করিলো।

: আচ্ছা আপনি যে এমনে ঘুরে ফিরে বেড়ান আপনার ভয় করে না?  

উত্তর শুনিয়া সেই হাসিলো! হাসিতে হাসিতে উত্তরের কাঁধের এক পাশ বাহির হইয়া গেলো। উত্তর তাহা মানুষের মতো ঢাকিবার চেষ্টা করিলো না।

: আমি তো মানুষ না, এর লেইগাই ডর করে না। মানু্ষ হইলেই খুব ডর! খুব ডর! খুব ডর!

মানুষ হইলেই খুব ডর। উত্তরের তাই ভয় নাই। তার চালচুলা নাই। সে রাস্তার পাশেই শুইয়া থাকে। যা মনে চায় খায়। যাহারে ইচ্ছা তাহারে ভেঙ্গাইয়া মজা লয়। উত্তরের কোনো বোধ নাই। উত্তর তাই বুঝে না অতশত খারাপ স্পর্শ বা ভালো স্পর্শ সম্পর্কে। উত্তরের ভালোবাসা নিয়ে মাথাব্যথা নেই। উত্তরের কোনো বোধ নেই, উত্তর মানুষ না বলে তার সাথে কেউ কোন সম্পর্ক বাধতে আসে না। কেউ কেউ তাহাকে দিয়া আধারে চাহিদা মেটায়। তবে উত্তরের কিছুই মাথায় থাকে না।

কারণ উত্তর চক্ষু এড়াইতে জানে। চক্ষু এড়াইতে শিখে সে এখন শুধু একটা সম্পর্কেই জড়িত। শি ইজ ইন আ রিলেশনশিপ উইথ ফ্রিডম।

উত্তরের নাম বেবি। সে আসাদপাড়ায় শুইয়া থাকে ব্রীজের তলায়।

২৩৩ পঠিত ... ১৭:০০, মে ১০, ২০২২

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top