নেটফ্লিক্সের 'ডার্ক' দেখে যেভাবে আমার জীবনে অন্ধকার নেমে এলো  

৫২৫ পঠিত ... ১৫:৫৯, এপ্রিল ০৯, ২০২২

Dark

বউকে কাছে টেনে চুমু খেতে যাব, ঠিক ওই মোমেন্টে মাথায় ডার্ক ভর করলো। ডার্ক মানে নেটফ্লিক্সের ডার্ক সিরিজ।  

: আচ্ছা, তোমাকে একটা কথা জিজ্ঞেস করি?

: উফফ! সময় পায় নাই প্রশ্ন করার। কর।

: তুমি তুমি তো?

: মানে কী?

: আমি আমি না মানে?

: মানে আসলেই তুমি আমার বউ তো?

: বুঝছি। এক্সের কথা মনে পড়ছে না? তুমি কিন্তু কথা দিছিলা বিয়ের পর তারে মনে করবা না। অথচ..ঘুমাও...কাল সকালেই আমি বাপের বাড়ি চলে যাব।

: আহা! সেরকম কিছু না? শুধু শুধু চ্যাতো কেন?

: তো এরকম আজগুবি প্রশ্নের মানে কী?

: মানে জানতে চাচ্ছিলাম আসলেই তুমি আমার বউ কি না।

: হ্যাঁ। কোনো সন্দেহ?

: না..মানে...কিভাবে যে বলি...খালা, ফুফি, চাচী এরকম কেউ নও তো?

: কী বল! ও খোদা! আমার জামাই তো পাগল হয়ে গেছে! আব্বা, আম্মা…

সারা বাড়ি বউয়ের চিৎকারে উথাল-পাতাল অবস্থা। আব্বা-আম্মা ধড়ফড় করে উঠে আসছে।

: আব্বা, দেখেন আপনার ছেলে এগুলা কী বলতেছে? ছি ছি! এগুলা একটা মানুষের মাথায় আসে কেমনে। ছি ছি। কয়দিন পর নিজের ছেলেমেয়ে হবে। আর এখন তিনি পর্ন দেখতে দেখতে এবনর্মাল হয়ে যাচ্ছে। ছি ছি।  

: কী হইছে বউমা?

: আমি এই কথা মুখে আনতে পারব না আব্বা। আপনার ছেলে..আপনার ছেলের মাথা গেছে।

আম্মা তার বউমাকে কাছে টেনে নিয়ে গেল। বউ সবকিছু বলল। আম্মা একবার আমার দিকে তাকাল। তারপর মাথা ঘুরে পড়ে গেল।

আব্বা হাসপাতালে কল দিল। 

: ডাক্তার ইব্রাহিম আছেন? 

: না।

: অন্য কোনো ডাক্তার আছেন?

: হ্যাঁ।

: উনি কোথা থেকে পাশ করা?

: ও। এই কথা। ভারতীয় উপমহাদেশে আসলো ব্রিটিশরা ব্যবসায় করতে। শালারপুতরা তো ব্যবসায় করতে আসে নাই। আসছিল আমাদেরকে ধন-সম্পদ লুট করতে। শালারপুতেরা আমাদেরকে দুইশো বছর শাসন করছে। তবু শালারপুতেরা ক্ষান্ত হয় নাই। যাবার সময় দুই ভাগ করে দিয়া গেছে। শালারপুত ফাকারের বাচ্চা ফাকার র‍্যাডক্লিফ এই অকামটা করছে। তারপর তো দুইটা দেশটা হয়ে গেল। পাকিস্তান আর ভারত।

: আমি জানতে চাইছি উনি কোন কলেজের স্টুডেন্ট ছিলেন?

: সেটাই তো বলছি। তারপর পূর্ব পাকিস্তান পশ্চিম পাকিস্তান ঝামেলা। যুদ্ধ হলো। আমরা হইলাম বাংলাদেশ। বাংলাদেশের প্রবেশদ্বার হইলো চট্টগ্রাম। সেখান থেকে সুবর্ণা ট্রেনে করে পৌঁছে যাবেন কমলাপুর।

কমলাপুর থেকে রিক্সা নিয়ে যাবেন পুরান ঢাকা। আচ্ছামত হাজী বিরিয়ানি খাবেন। তারপর একটা সিগারেট ধরাই হাটতে থাকবেন। একটা মেডিকেল পড়বে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ। ওই কলেজে পড়তো আমাদের স্যার।

স্যারের কলেজ থেকে আবার চট্টগ্রামের ট্রেনে উঠবেন। স্টেশনে নেমে বলবেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কই। ওখানে গিয়ে এক কাপ চা খাবেন। খেয়ে এয়ারপোর্টে যাবেন।

সেখান থেকে সরাসরি রংপুরের এয়ার আছে। রংপুরে গিয়ে কিছু সময় 'অংপুর' বলে মজা নিবেন। তারপর রংপুর মেডিকেল যাবেন। ওখানেই আমাদের স্যারের মেয়ে পড়তো। আজকে উনি আছেন। সিরিয়াল লিখব স্যার?

: না থাক! আমার ওয়াইফের হুঁশ ফিরছে।

হুঁশ ফেরা মাত্র আম্মা এসে আমার গলাটা ধরলেন। তারপর ধাক্কা দিয়ে বাসা থেকে বের করে দিলেন। 

মুরাদপুরের রাস্তায় সুনসান নীরবতা। অন্ধকারে একা একা হাটছি। নিজেকে হিমু হিমু লাগছে।

পাঞ্জাবির পকেট আছে কি না চেক করে দেখি। এ কী! বউ চেঁচাচ্ছে কেন? এই, কী কর? শাড়ির ভেতর হাত ঢুকাচ্ছ কেন? রাত বিরাতে ঢং শুরু হইছে, তাই না?

: মানে কী! আমি কি স্বপ্ন দেখছিলাম?

: আমি কীভাবে বলব?  

: আচ্ছা, তুমি কি আসলেই আমার বউ? খালা, ফুফু টাইপ কেউ না তো?

: নারে আমি তোর খালা, ফুপু কেউ নাই। আমি তোর মা হারামজাদা! নিজের বউরে চিনতেছে না। কোন এক ডার্ক না ফার্ক দেখার পর মাথাটা গেছে। নিজের বাপকে গিয়ে জিজ্ঞেস করে, আব্বা, এই মহিলা তোমার বউ তো? লজ্জা-শরমের মাথা খাইছে।

মাথায় আলতো আলতো ছোঁয়া পাচ্ছি। শব্দও ভেসে আসছে। সাদাত সাহেব কি ঘুমাচ্ছেন? অফিসের ডেস্কে মাথা রেখে দারুণ ঘুম হয় বুঝি?

তার মানে এতক্ষণের সবই স্বপ্ন ছিল? হইলো কী আমার!

: আরেহ না। ঘুমাচ্ছি না। এক কাপ চা আনো তো।

: সাদাত সাহেব, আমি আপনার অফিসের বস। রোজি ম্যাম।

মাথা তুলে বললাম, আরেহ যাও তো। ফাজলামো রাখো। এক কাপ কড়া করে চা বানিয়ে আনো।

: সাদাত সাহেব, আমি রোজি ম্যাম। আপনার বস।

ধুর! অভিমান রাখো তো। আসো। কপালে একটা চুমু খাই। সব অভিমান ভেঙে যাবে।

অফিসের বসকে জোরপূর্বক চুমু খাওয়ার কারণে চাকরি চলে গেছে। আমি মুরাদপুরের ওভারব্রিজে মাথায় হাত দিয়ে বসে আছি! কিংবা এটাও স্বপ্ন হতে পারে।

কিংবা এমনও হতে পারে তিনটাই বাস্তব। আমি মাথায় হাত দিয়ে বসে আছি। আমার অন্য বয়সের সাদাত হয়তো ঠিকই বউয়ের সাথে আদর সোহাগ করছে। আরেক বয়সের সাদাত নিশ্চয়ই অফিসে কাজ করছে। তার বসই তার বউ। বউ হয়তো অন্য সময়ে চলে যাওয়ায় চিনতে পারে নাই। কিংবা...। ধুর্বাল! কিংবার গুষ্ঠি কিলাই!   

 

                                                  

  

         

 

 

৫২৫ পঠিত ... ১৫:৫৯, এপ্রিল ০৯, ২০২২

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top